পুনরায় অবস্থান শিক্ষার্থীদের: আন্দোলন স্থগিতের সিদ্ধান্ত প্রত্যাখ্যান

students suspended the decision to stop the movement

সরকারের আশ্বাসে চাকরিতে কোটা সংস্কার আন্দোলন কর্মসূচি স্থগিতের ঘোষণা প্রত্যাখ্যান করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে ফের অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ করছেন শিক্ষার্থীরা।

মঙ্গলবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাস্কর্যের সামনে অবস্থান নেন।

দুপুর একটার দিকে অবস্থান বিক্ষোভ থেকে কোটা সংস্কারে শিক্ষার্থীদের ৫ দফা দাবি আদায়ে সরকারকে তিন দিনের আল্টিমেটাম দেয়া হয়।

এই সময়ের মধ্যে দাবি মানা না হলে প্রত্যেক দিন সকাল ১১টা সন্ধ্যা সাতটা পর্যন্ত ক্যাম্পাসে অবস্থান কমসূচি পালন করবে শিক্ষার্থীরা।

তারা ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করে এই কর্মসূচি পালন করবে বলে জানান আন্দোলনের অন্যতম সমন্বয়ক আল ফজলে রাব্বী।

তিনি আরো বলেন, আমরা সরকারের আশ্বাসে কর্মসূচি স্থগিতের ঘোষণা মানি না। এখানে সাধারণ শিক্ষার্থীদের ইচ্ছার প্রতিফলন ঘটেনি।’

উল্লেখ্য, কোটা সংস্কারে গত ১৪ ফেব্রুয়ারি থেকে পাঁচ দফা দাবিতে আন্দোলন করে আসছেন শিক্ষার্থীরা। তাদের দাবিগুলো হলো- কোটা সংস্কার করে ৫৬ থেকে ১০ শতাংশে কমিয়ে আনা, কোটা প্রার্থী না পাওয়া গেলে শূন্যপদগুলোতে মেধার ভিত্তিতে নিয়োগ দেয়া, চাকরি নিয়োগ পরীক্ষায় কোটা সুবিধা একাধিকবার ব্যবহার না করা, কোটায় কোনো ধরনের বিশেষ নিয়োগ পরীক্ষা না নেয়া এবং চাকরি ক্ষেত্রে সবার জন্য অভিন্ন কাট মার্ক ও বয়সসীমা নির্ধারণ করা।

এ আন্দোলনের অংশ হিসেবে গত রবিবার দুপুরে কোটা সংস্কার দাবিতে শাহবাগে জড়ো হয়ে পদযাত্রা কর্মসূচি করে শিক্ষার্থীরা। পরে তাদের অবস্থানে রাত আটটার দিকে পুলিশ চড়াও হলে সংঘর্ষ হয়। এক পর্যায়ে এই সংঘর্ষ পুরো ক্যাম্পাস এলাকায় ছড়িয়ে পড়ে। এতে পুলিশসহ দেড় শতাধিক শিক্ষার্থী আহত হন। অনেককে আটক করে পুলিশ।

এরপর গতকাল সোমবারও দিনভর বিক্ষোভ করেন শিক্ষার্থীরা। পরে বিকালে সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জাসান খান কামালের সঙ্গে আন্দোলনকারীদের ২০ সদস্যের প্রতিনিধি বৈঠক করেন।

বৈঠকের পর বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের আহ্বায়ক হাসান আল মামুন সচিবালয়ে সাংবাদিকদের বলেন, তারা সরকারের আশ্বাসের পরিপ্রেক্ষিতে আগামী ৭ মে পর্যন্ত আন্দোলন স্থগিত করছেন। তিনি বলেন, সরকারের সঙ্গে বৈঠকে আন্দোলনের সময় গ্রেপ্তার হওয়া সবাইকে মুক্তি দেওয়া বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়েছে।

তবে আন্দোলন স্থগিতের সিদ্ধান্ত প্রত্যাখ্যান করে অবস্থান কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেয় আন্দোলনকারীদের একটি অংশ। গতকাল রাতে শাহবাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রোকেয়া হল ও বাংলা একাডেমি এলাকায় অবস্থান নিয়ে তারা স্লোগান দিতে থাকে।

ওই অংশটিই আজ সকাল থেকে প্রথমে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় লাইব্রেরি ও পরে রাজু ভাস্কর্যের সামনে জড়ো হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here